1. mahfuzahamed76@gmail.com : admin :
  2. falgunitv2020@gmail.com : Falguni tv : Falguni tv
শনিবার, ০৮ অগাস্ট ২০২০, ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন

বন্দরে ছাড় পাচ্ছেন না গাড়ি ব্যবসায়ীরা

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৪ মে, ২০২০
  • ৯৬ দেখেছেন

করোনা পরিস্থিতির কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে আসা সব ধরণের আমদানি পণ্যবাহী কনটেইনার রাখার ভাড়া দেড় মাসের বেশি সময় ধরে ছাড় দিয়ে যাচ্ছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। আমদানিকারকেরা যাতে ক্ষতির মুখে না পড়েন সে জন্য নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় এই সুবিধা দিয়েছে। সব ধরনের ব্যবসায়ীরাই এই সুবিধা পাচ্ছেন, পাচ্ছেন না শুধু গাড়ির আমদানিকারকেরা। মোংলা বন্দরে অবশ্য কনটেইনারে যেমন ছাড় নেই, তেমনি গাড়িতে নেই। এই বন্দর দিয়ে সমুদ্রপথে দেশের মাত্র দুই শতাংশ পণ্যবাহী কনটেইনার আমদানি হয়। তবে চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ে মোংলা বন্দর দিয়ে গাড়ি আমদানি করা হয় বেশি। সব ব্যবসায়ী ছাড় পেলে গাড়ি আমদানিকারকেরা কেন ছাড় পাবেন না? প্রশ্ন করা হলে দুই বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারমানই বলেছেন, এটা সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্ত। গাড়ি ব্যবসায়ীরা বলছেন, করোনার কারণে গত দেড় মাস ধরে দেশের প্রায় সব গাড়ির শোরুম বন্ধ। গাড়ি বেচাকেনাও নেই। বিক্রি বন্ধ থাকায় শুল্ক কর পরিশোধ করে বন্দর থেকে গাড়ি খালাস করার সক্ষমতাও নেই ব্যবসায়ীদের। এতে চট্টগ্রাম ও মোংলা – দুই বন্দরে এখন প্রায় সাড়ে সাত হাজারের বেশি গাড়ি আটকা পড়েছে। এসব গাড়ি আমদানি করেছেন পুরনো গাড়ি ব্যবসায়ীদের সংগঠন বারভিডার সদস্যরা। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের একজন ঢাকার ধানমন্ডির ডি অটোস প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার আহসান শহীদ প্রতিমাসে ৫০–৬০টি গাড়ি বিক্রি হতো তাঁর প্রতিষ্ঠান থেকে। এখন দুই মাস ধরে বন্ধ রয়েছে শোরুম। এ কারণে মোংলা বন্দরে তাঁর প্রতিষ্ঠানের আটকা পড়েছে ১২৮ টি গাড়ি। আবার গাড়ি নিবন্ধনকারী কর্তৃপক্ষের অফিস বন্ধ থাকায় নিবন্ধনও হচ্ছে না, তাতে ব্যাংকের অর্থায়নও আটকে গেছে।চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরে জাহাজ থেকে নামানোর পর চারদিন পর্যন্ত গাড়ি রাখার ভাড়া দিতে হয় না। এরপর প্রথম সপ্তাহ, দ্বিতীয় সপ্তাহ এবং পরবর্তী সময়ের জন্য প্রতিদিন–এই তিন স্তরে টন হিসেবে ভাড়া আদায় করে দুই বন্দর কর্তৃপক্ষ । এই তিন স্তরে চট্টগ্রাম বন্দর আদায় করে যথাক্রমে ৯৮ টাকা ৪০ পয়সা, ২৪৬ টাকা এবং ৩৯৩ টাকা করে। আর মোংলা বন্দর তিন স্তরে আদায় করে যথাক্রমে ২৮ টাকা ৩৫ পয়সা, ৮০ টাকা ৭১ পয়সা এবং ১২৯ টাকা করে। প্রতিটি গাড়ির ন্যূনতম ওজন দুই টন। এ হিসেবে সর্বশেষ ধাপে প্রতিটি গাড়ি রাখার ভাড়া চট্টগ্রাম বন্দরে ৭৮৬ টাকা এবং মোংলা বন্দরে ২৫৮ টাকা ৫৮ পয়সা করে ভাড়া আসে। দুই বন্দরে থাকা গাড়িগুলোর প্রতিদিন ভাড়া আসছে প্রায় ৩০ লাখ টাকার বেশি।

সংবাদটি ভালো লাগলে সোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির অনন্য সেবা গুলো দেখুন
Desing & Developed BY All right reserve falgunitv.news